কক্সবাজারে বিশাল জ্বালানি অবকাঠামো নির্মাণ করবে সামিট ও জেরা এশিয়া

রাজনীতি

শেয়ার করুন

জাপানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাষ্ট্রীয় সফরকালে টোকিওর নিউ ওটানি হোটেলে এ দুই কোম্পানির মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সেসময় উপস্থিতিত ছিলেন। সামিট ও জেরা এশিয়া যৌথ উদ্যোগে কক্সবাজারের মাতারবাড়িতে বার্ষিক ২০ মিলিয়ন টন মালামাল সরবরাহের ক্ষমতা সম্পন্ন একটি জ্বালানি অবকাঠামো প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে। বুধবার (২৯ মে) সামিট গ্রুপ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। সামিট, জেরা-এশিয়া এবং বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে সম্পাদিত এই প্রকল্প চুক্তিটির বাস্তবায়ন আগামী দুই বছরের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। যাতে বিনিয়োগ করা হবে আনুমানিক ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, সমঝোতা স্মারক অনুসারে, সামিট ও জেরা-এশিয়া কক্সবাজারের মাতারবাড়ি এলাকায় একটি বৃহৎ জ্বালানি অবকাঠামো প্রকল্প উন্নয়ন করবে যার আওতায় রয়েছে বার্ষিক ২০ মিলিয়ন টন মালামাল সরবরাহের ক্ষমতা। বৃহৎ এই অবকাঠামো প্রকল্পটির আওতায় কার্গো এবং প্রাথমিক জ্বালানির বিভিন্ন টার্মিনাল উন্নয়নের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যবসা জোরদার করবে।

সমঝোতা স্মারকে সামিট গ্রুপের পরিচালক ফয়সাল খান এবং জেরা এশিয়ার সিইও তোসিরো কুদামা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সই করেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক এবং মিডি (মহেশখালি-মাতারবাড়ি ইনটিগ্রেটেড ইনফ্রাস্ট্রকচার ডেভেলপমেন্ট ইনিসিয়াটিভ) এর চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ, জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা ও সামিট গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আজিজ খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *